সুইসাইড নোট

সুইসাইড নোট

শূন্য পকেট দেখেইতো এসেছিলাম তোমার কাছে ।পিছনে ঘুরে তাকাইনি একবারের জন্যও ফেলে আসা দিনগুলোর দিকে।স্বপ্ন ছিল তোমার বুকেই হয়তো রাত গুলো কাটিয়ে দিতে পারব....বাবা-মার সম্পূর্ণ ভালোবাসাটা হয়তো তুমি একাই পূর্ণ করে দিতে পারবে এই বিশ্বাস নিয়েই তো সেদিন রাতে তোমার হাত ধরে ঘর ছেড়ে পালিয়ে ছিলাম।সেই তোমার জন্যই একটু একটু করে নিজেকে বদলেছি ,চেষ্টা চালিয়ে গেছি তোমার মনের মত হতে।মানুষের একান্ত নিজস্ব যে রূপ সেটাও বদলে ফেলেছিলাম।সাজ সজ্জা, লৌকিকতার পরিবর্তন করতে ও দুবার ভাবিনি।কিন্তু সত্যি বলতে কি বলতো এই পরিবর্তনগুলো করতে আমারও খুব কষ্ট হতো।আক্ষরিক অর্থে এটা সামান্য পরিবর্তন হলেও এটাতো শুধুমাত্র বাহ্যিক পরিবর্তন নয় ,এটা মানুষের নিজস্বতার পরিবর্তন সর্বোপরি তার রুচির পরিবর্তন,এই পরিবর্তনে যেন বিবেক, মনুষত্ব বিসর্জন দিয়ে দিচ্ছি।জানো তো ইচ্ছে ছিল রূপে নয় গুনে ভোলাবো তোমায়,ইচ্ছে ছিল মিথ্যে লোকদেখানো সুখে নয় তোমার স্বপ্নমাখা রঙিন দুটো চোখে শান্তি খুঁজে নেব কিন্তু কাচের গায়ে বৃষ্টি ফোটা দিয়ে আঁকা জলবিন্দুর মতো সেটা  নষ্ট নীড়ে পরিণত হলো।সেই চোখ গুলোই তো বিশ্বাসঘাতকতা করে ফেলল।এখন তো তোমার ব্যস্ত জীবনে আমার নিঃসঙ্গতাও একটা বিরাট হাতছানি তাইনা?এই কয়েকটা বছরেই যেন নিজেকে আকাশ থেকে পাতালে নামিয়ে এনেছি, ঠিক আকাশে ছিলাম কিনা জানিনা কিন্তু এটা জানি যে সময়ের ব্যবধানে নিজের ভালোলাগা থেকে ধীরে ধীরে সরে এসেছি,নিজস্বতা খুইয়ে তোমার প্রয়োজনীয়তাকে আমার কর্তব্য বানিয়ে নিয়েছি। বুঝতে পারিনি যে সেটা তপ্তবালু প্রান্তরের মরীচিকা ছুঁতে পাওয়ার মত হয়ে উঠবে।এটাও বুঝতে পারিনি যে একটা বদ্ধ ঘুটঘুটে অন্ধকার ঘরে এসে থমকে যাবে আমার জীবনটা, সেই ঘরের কোণে একটা জ্বলন্ত মোমবাতিও নেই এমনকি একটা ছিদ্র পর্যন্ত নেই যেখান থেকে চাঁদের এক ঝলক আলো প্রবেশ করতে পারে আমার জীবনে।নিজেকে এতটাই আধুনিক করে ফেলেছি যে অন্তরের কান্নার জল টাও চোখ থেকে এখন আর বেরোয় না,হয়তো বা এখন আমার হাতের ছোঁয়ায় প্রকৃতি ও পাথর হয়ে যাবে। জানো আজ নিজেকে প্রথম থেকে শেষ পর্যন্ত ভাবতে পারি না, কেমন যেন খেই হারিয়ে ফেলি... মনে হয় আধুনিকতার অথৈ সমুদ্রে ডুবে গেছি আমি।নিজের বদল করতে করতে আজ আমার রক্ত-মাংস হিম হয়ে গেছে-কিন্তু এর পরিণতি কি বিশ্বাসঘাতকতা ছিল?সব থেকে কাছের মানুষটা দূরে চলে যাবে এটা কখনো ভাবি নি - আসলে আমার বিশ্বাস এতটা ঠুনকো কখনোই ছিল না, কিন্তু আজ আমি তোমার অনেক কিছুই বিশ্বাস করি না.. বিশ্বাস করতে পারি ও না।আজ আমার স্নায়ু রসে অবিশ্বাস মিশে গেছে -এতটাই অবিশ্বাস নিয়ে কি করে জীবনটা কাটিয়ে যাই বল?অভিনয়টা এই কয়েক বছরে রপ্ত করে ফেললেও কাছের মানুষের সাথে অভিনয় করা হয়তো খুব একটা সহজ কিছু নয়।মাঝে মাঝে তো সত্যিই আর অভিনয় দুটোকে গুলিয়ে ফেলি-বিশ্বাস করো আর পারছিনা হাঁপিয়ে উঠেছি।

এটা কখনো ভেবো না আমার না থাকার জন্য তোমাকে দায়ী করছি ।দায়ী হয়তো আধুনিকতা বা নিঃসঙ্গতা বা অন্য কোন কিছু ।আজ বুঝি একটা সম্পর্ক সুখী পরিণতি পায় রূপে নয় বা শুধু গুনেও নয়,সম রুচিতে বা সমচিন্তা-ভাবনার বিকাশে।রুচি বা চিন্তাভাবনার গুরুত্ব না দিয়ে আবেগের গুরুত্ব দেওয়ায় আজ আমার এই পরিণতি।আজ তাই তোমায়ও বলছি নিজের রুচি, চিন্তাভাবনা, চাহিদাকে গুরুত্ব দিও অন্য কারো জন্য নিজস্বতার বদল  ঘটিওনা তাহলে তোমাকেও হয়তো অন্ধকারে তলিয়ে যেতে হবে।

       ইতি - তোমার.......