খুশির এপিঠ-ওপিঠ

খুশির এপিঠ-ওপিঠ

আকাশে বাতাসে শরতের ছোঁয়া, পুজোর গন্ধ ভেসে আসছে। বাজারে, দোকানে, মলে পা ফেলা যাচ্ছে না। ওয়ারড্রবেও নতুন পোশাক রাখার জায়গা পর্যন্ত নেই। তবুও অফিসফেরত সবার হাতে শপিং ব্যাগ। পঞ্চমী থেকে দশমী পর্যন্ত খাওয়া দাওয়া, ঘোরা, পোশাক সাজসজ্জার পরিকল্পনা তৈরি। আসলে পুজো মানেই তো বাঙালির বিশেষ চাহিদা, বিশেষ পাওয়া আর সাথে সাথে বিশেষ আনন্দ ও। কত ছুটি, কত মজা.... তাইনা বল?

এবার আসি ঠিক তোমার বয়সী রাস্তায় বসে ফুল বিক্রি করা মেয়েটার কথায়-যার কাছে পুজো মানে সম্পূর্ণ আলাদা ভিন্ন একটা দিক।

ছুটি তো দূরের কথা রাত জেগে ঠাকুর দেখার পরিবর্তে সে রাত জেগে ঠাকুরকে সাজিয়ে যাচ্ছে....মলে কেনাকাটার পরিবর্তে রাস্তার ফুটপাতে ফুল বিক্রি করে যাচ্ছে....পোশাক কিনে ওয়ারড্রব ভরার পরিবর্তে চাল কিনে হাঁড়িতে ভাত ফোটাচ্ছে.... শপিং ব্যাগের পরিবর্তে হাতে বাজারের থলে নিয়ে ঘরে ফিরছে...তুমি পুজোর দিনগুলিতে সাজসজ্জায় ব্যস্ত আর সে দুটো বেশি পয়সা রোজগারের কাজে ব্যস্ত.... তুমি ভালো ভালো জায়গায় ঘোরার প্ল্যান করছো আর সে ভালো খদ্দের খুঁজে ফুল বিক্রি করার জন্য।

পৃথিবী কি আজব তাই না? পৃথিবীর একই জায়গায় একই পাড়ায় দুই মেরুর মানুষ বাস করে যাদের শুধুমাত্র জীবনযাত্রাই আলাদা নয় পূজো টাও সম্পূর্ণ আলাদা